৩০ বছর ধরে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম ও ক্ষুদ্রঋণ অর্থায়নের মাধ্যমে বুরো বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে একটি টেকসই উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের দিকে।

বুরোর নানাবিধ আর্থ - সামাজিক পরিষেবার উল্লেখযোগ্য কিছু বৈশিষ্ট্য ও অর্জন:

  • জামানত বা প্রসেসিং ফি ছাড়া ঋণ প্রদান
  • ঋণের সাথে প্রশিক্ষণ ও কারিগরী সহায়তা প্রদান
  • বিভিন্ন মেয়াদি সঞ্চয় সুবিধা ও চাহিবামাত্র উত্তোলন
  • সঞ্চয়ের লাভের উপর নেই কোন চার্জ
  • সকল শাখা থেকে ২.৫% প্রণোদনাসহ রেমিটেন্স গ্রহণ
  • বিকাশ/নগদের মাধ্যমে কিস্তি প্রদান
  • বিগত ৪ অর্থবছর যাবত সেরা করদাতার স্বীকৃতি লাভ

বুরো বাংলাদেশের সদস্য বা গ্রাহক ভর্তি প্রক্রিয়া

নিম্নোক্ত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বাংলাদেশের যেকোনো নাগরিক বুরো বাংলাদেশের সদস্য হতে পারবেন:

বাংলাদেশের যেকোনো নাগরিক, যাদের বয়স (১৮-৬০) এর মধ্যে তিনি ইচ্ছে করলে বুরো বাংলাদেশের গ্রাহক/সদস্য হতে পারবেন। একজন গ্রাহক/সদস্য তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সংস্থার নিকটস্থ কেন্দ্র/সমিতির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মী অথবা নিকটস্থ শাখায় যোগাযোগ করবেন। সংশ্লিষ্ট শাখা কর্তৃপক্ষ যাচাই বাছাই, জরিপ এবং অন্যান্য আনুষাঙ্গিক কাজ সম্পন্ন করে আগ্রহী গ্রাহক/সদস্যকে শাখায় ভর্তি করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। পরবর্তীতে উক্ত সদস্য বুরো বাংলাদেশের সকল সেবাসমূহ গ্রহণ করতে পারবেন।

ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং ফি: -

  • (১) সদস্য/গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি।
  • (২) সদস্য/গ্রাহকের ০২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • (৩) ভর্তি ফি, পাশবই ফি এবং অন্যান্য ফি বাবদ মোট ২৫ টাকা জমা দিয়ে নির্ধারিত ভর্তি ফরম পূরণ করে বুরো বাংলাদেশের গ্রাহক/সদস্য হিসেবে ভর্তি হতে হবে।

সঞ্চয় সেবা সম্পর্কে জানতে চান?

প্রত্যেক মানুষেরই ভবিষ্যৎ সুরক্ষার বিষয়টি বিবেচনা করে নিয়মিত সঞ্চয় করা উচিত। বুরো বাংলাদেশে ভর্তি হয়ে সদস্য/গ্রাহকগণ নিয়মিত সঞ্চয়ের মাধ্যমে ক্ষুদ্র/বৃহৎ আয়বর্ধক প্রকল্পে বিনিয়োগ, স্বাস্থ্য পরিচর্যা, সন্তানের শিক্ষা ব্যয়, গৃহ নির্মাণ এবং অন্যান্য অতি প্রয়োজনীয় খাতে বিনিয়োগ করার জন্য ছোটো অথবা বড় আকারের পুঁজি গঠন করতে পারেন। বুরো বাংলাদেশ তার সকল সদস্য/গ্রাহককে উন্মুক্ত সঞ্চয় সুবিধার মাধ্যমে মূল্যবান সেবা প্রদান করে এবং বুরো বাংলাদেশে জমাকৃত যেকোনো সঞ্চয় সহজে উত্তোলনযোগ্য।

বুরো বাংলাদেশ সদস্য/গ্রাহকের জন্য নিম্নে বর্ণিত সঞ্চয় সেবাসমূহ প্রদান করে থাকে:

  • (১) সাধারণ সঞ্চয় (General Savings)
  • (২) স্বেচ্ছা সঞ্চয় (Voluntary Savings)
  • (৩) মেয়াদি সঞ্চয় (Contractual Savings)

(১) সাধারণ সঞ্চয় (General Savings)

সকল ধরনের সদস্য/গ্রাহককে সংস্থার সদস্যপদ গ্রহণের সময় একটি সাধারণ সঞ্চয় হিসাব খুলতে হবে। সদস্য/গ্রাহককের সাধারণ সঞ্চয় জমার উপর বার্ষিক ৬% হারে লভ্যাংশ প্রদান করা হয়। ভর্তিকৃত সদস্য/গ্রাহক সর্বনিম্ন ২০ টাকা জমা প্রদান করে মাসিক/সাপ্তাহিক ভিত্তিতে সাধারণ সঞ্চয় জমা করতে পারেন।

(২) স্বেচ্ছা সঞ্চয় (Voluntary Savings)

স্বেচ্ছা সঞ্চয় হিসাবে সকল সদস্য/গ্রাহকগণ একাধিক সঞ্চয় হিসাব খুলতে পারবেন। সাপ্তাহিক ও মাসিক ভিত্তিতে যেকোনো পরিমাণ টাকা জমা প্রদান করা যাবে। ৩ বৎসর মেয়াদি স্বেচ্ছা সঞ্চয়ে সদস্যের সঞ্চয় জমার উপর বার্ষিক ৭.০০% লাভ প্রদান করা হয়।

(৩) মেয়াদি সঞ্চয় (Contractual Savings)

মেয়াদি সঞ্চয় হিসাবে সকল সদস্য/গ্রাহকগণ সাপ্তাহিক অথবা মাসিক কিস্তির মাধ্যমে নির্দিষ্ট মেয়াদ পূর্ণ করে সঞ্চয় করতে পারবেন। এক্ষেত্রে ৩ বৎসর মেয়াদি সঞ্চয়ের জন্য বার্ষিক ৭% হারে, ৫ বৎসর মেয়াদি সঞ্চয়ের জন্য ৮% হারে এবং ১০ বৎসর মেয়াদি সঞ্চয়ের জন্য ১০% হারে লাভ প্রদান করা হয়।

বুরো বাংলাদেশ-এর ঋণ সেবা সম্পর্কে জানতে চাই:

বুরো বাংলাদেশ একটি অলাভজনক বেসরকারি উন্নয়নমূলক সংস্থা। ১৯৯০ সাল থেকে গণমানুষের সার্বিক (বর্তমান ও ভবিষ্যৎ উভয় প্রজন্মের সামাজিক, অর্থনৈতিক, মানবিক ও পরিবেশগত) টেকসই উন্নয়নে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। বুরো বাংলাদেশ সাধারণ ঋণ, কৃষি ঋণ, SME ঋণ, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ঋণ এবং দুর্যোগ ঋণসহ সাধারণ মানুষের জীবন জীবিকার উন্নয়নে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহজ শর্তে ঋণ সেবা প্রদান করে থাকে।

সাধারণ ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। সদস্যরা ব্যবসায়িক বা আয় বৃদ্ধিমূলক কাজের জন্য ঋণ গ্রহণ করতে পারেন।
  • ২। আত্ম কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং চলতি ব্যবসায় মূলধন স্বল্পতার অভাব পূরণ করতে সহায়তা করে।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ - ১ বছর ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত
সার্ভিস চার্জ ২৪%
জরুরি ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। কোনো জরুরি প্রয়োজনে বা উৎসবে (ঈদ, পূজা, বড়দিন, বৌদ্ধ পূর্ণিমা ইত্যাদি) বা চিকিৎসা/ শিক্ষার প্রয়োজনে অথবা ব্যবসার পূঁজির প্রয়োজনে ক্ষুদ্র আকারে এ ঋণ দেয়া হয়।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ৩ মাস ঋণের পরিমাণ - সর্বোচ্চ ১০,০০০ টাকা পর্যন্ত
সার্ভিস চার্জ ২৪%
পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। পানি পান ও গৃহস্থালী সকল ক্ষেত্রে বিশুদ্ধ পানীয় জল ব্যবহারে সহায়তা এবং স্বাস্থ্যসম্মত ল্যাট্রিন ব্যবহারের উদ্দেশ্যে এ ধরনের ঋণের প্রচলন করা হয়েছে।
  • বি. দ্র. সদ্যসদের চাহিদা ও বাস্তবতার নিরিখে এ ঋণের পরিমাণ নির্ধারিত হয়।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত ও কেন্দ্রবহির্ভূত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ১ বছর ঋণের পরিমাণ - সর্বোচ্চ ৫,০০০- ৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত (অঞ্চলভেদে এ ঋণের পরিমাণ বৃদ্ধি করা যেতে পারে)
সার্ভিস চার্জ ২৪%
কৃষি ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। কৃষকদের নগদ অর্থের সহায়তা
  • ২। কৃষিতে সংগঠিত শক্তি গড়ে তোলা
  • ৩। নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারে অভ্যস্থ করে তোলা
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত ও কেন্দ্রবহির্ভূত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ১, ২ ও ৩ বছর ঋণের পরিমাণ - সদ্যস্যের আর্থিক সামর্থ্য/সক্ষমতা অনুযায়ী
সার্ভিস চার্জ ২৪%
মৌসুমি ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। মাঠ পর্যায়ে প্রান্তিক ও মাঝারি কৃষকের ঋণ চাহিদার ভিত্তিতে মৌসুমি ঋণ চালু করা হয়েছে।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত ও কেন্দ্রবহির্ভূত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক / এককালীন
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ৩,৪,৫ ও ৬ মাস ঋণের পরিমাণ - ১,০০০- ৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত
সার্ভিস চার্জ ২৪%
SMAP ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের কৃষি ঋণ ও কৃষি বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও বহুমুখীকরণ ও দেশের খাদ্য নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা।
  • বি. দ্র. শস্য, গবাদিপশু, কৃষি যন্ত্রপাতি ব্যতীত অন্য কোনো খাতে এই ঋণ ব্যবহার করা যাবে না।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত ও কেন্দ্রবহির্ভূত
কিস্তির ধরন মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ১ ও ২ বছর ঋণের পরিমাণ - ৫,০০০- ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত
সার্ভিস চার্জ ১৯%
ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ ঋণ (SME)
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। নিজ উদ্যোগে স্বনির্ভর হতে চান তাদের জন্য এই ঋণ প্রদান করা হয়।
  • ২। প্রবাসে অবস্থানরত প্রবাসী পরিবারের সদস্যগন যারা দেশে অবস্থান করেন, তাদেরকে এ ঋণ প্রদান করা হয়।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত ও কেন্দ্রবহির্ভূত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ১,২ ও ৩ বছর ঋণের পরিমাণ - সদস্যদের সামর্থ্য/সক্ষমতা অনুযায়ী
সার্ভিস চার্জ ২৪%
দুর্যোগ ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। সরকার কর্তৃক ঘোষিত দুর্যোগ পরবর্তী ব্যবসার ক্ষতি বা পুঁজি ঘাটতি কাটিয়ে উঠার জন্য বুরো বাংলাদেশ এই ঋণ সহায়তা দিয়ে থাকে।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ১ বছর ঋণের পরিমাণ - সর্বোচ্চ ২০,০০০ টাকা পর্যন্ত
সার্ভিস চার্জ ১৮%
ইলেক্ট্রনিক প্রোডাক্ট ঋণ
বিবরণ এবং উদ্দেশ্য
  • ১। সামাজের যে কোনো স্তরের মানুষের জন্য স্মার্টফোন ও অন্যান্য গৃহ ব্যবহার্য সামগ্রি সহজলভ্য করে তুলতে ও ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের আর্থিক অন্তর্ভূক্তি বৃদ্ধি করতে এ ঋণ সহায়তা প্রদান করা হয়।
  • ২। এ ঋণের আওতায় সদস্যগণ ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড ছাড়া EMI-তে স্মার্টফোনসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডেড গৃহ ব্যবহার্য সামগ্রি ক্রয় করতে পারেন।
সেবা পদ্ধতি কেন্দ্রভুক্ত ও কেন্দ্রবহির্ভূত
কিস্তির ধরন সাপ্তাহিক / মাসিক
ঋণের মেয়াদ ও পরিমাণ মেয়াদ- ৩,৬,৯ ও ১২ মাস ঋণের পরিমাণ - ৮,০০০- ১,৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত **ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড ছাড়াই
সার্ভিস চার্জ ২৪%

"বি. দ্র. বুরো বাংলাদেশের সকল ঋণের সার্ভিস চার্জ মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথোরিটি/বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করে নির্ধারণ করা হয়। পার্বত্য অঞ্চলে পরিচালিত সকল শাখার সদস্য/গ্রাহকগন যে কোনো ধরনের ঋণের জন্য বিশেষ সুবিধা পাবে। পার্বত্য অঞ্চলের সদস্য/গ্রাহকগনের জন্যে ঋণের সার্ভিস চার্জে ১২%।"

আমি একটা ঋণ নিতে চাই কিভাবে নিবো?

আপনি যে শাখা থেকে ঋণ নিতে চাচ্ছেন উক্ত শাখায় যোগাযোগ করুন।

এছাড়া ঋণ পাওয়ার কিছু শর্তাবলি আছেঃ

কেন্দ্রভুক্ত সদস্যের জন্যঃ

  • ১. কেন্দ্রে যোগদানের বয়স কমপক্ষে ০২ সপ্তাহ (শিথিলযোগ্য) হতে হবে।
  • ২. নিয়মিত সঞ্চয় জমার প্রদানে অভ্যাস থাকতে হবে।
  • ৩. আর্থিক নিরাপত্তা তহবিলে নির্ধারিত হারে চাঁদা দিতে হবে।
  • ৪. নিয়মিত কেন্দ্র সভায় উপস্থিত থাকতে হবে।
  • ৫. ঋণ গ্রহীতাকে প্রতিশ্রæত কাজের জন্য নিজেকেই ঋণের ব্যবহার করতে হবে।
  • ৬. সংস্থার নিয়মে আস্থা রেখে সদস্যদের নিজের দায়িত্ব ও কর্তব্য স¤পর্কে সচেতন হতে হবে।
  • ৭. যিনি ঋণ নিতে ইচ্ছুক তাকে কর্মক্ষম হতে হবে।

কেন্দ্র বহির্ভূত সদস্যের জন্যঃ

  • ১. সংস্থার নির্ধারিত নিয়মানুয়ায়ী সদস্য/গ্রাহক হতে হবে।
  • ২. দৃশ্যমান কাজ/ব্যবসায়ের জন্য ঋণ নিতে হবে।
  • ৩. আর্থিক নিরাপত্তা তহবিলে নির্ধারিত হারে চাঁদা প্রদান করতে হবে।
  • ৪. ঋণ গ্রহীতাকে প্রতিশ্রুতি কাজের জন্য নিজেই ঋণটি ব্যবহার করতে হবে।
  • ৫. সংস্থার নিয়মে আস্থা রেখে সদস্যদের নিজের দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।
  • ৬. যিনি ঋণ নিতে ইচ্ছুক তাকে কর্মক্ষম হতে হবে।